নারায়নগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে হয়রানি ছাড়াই দ্রুত পাসর্পোট করতে পেরে আনন্দিত গ্রাহকরা, সাধুবাদ মাহমুদুল হাসানকে

নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে উপ পরিচালক গাজী মাহমুদুল হাসান যোগদান করার পর থেকেই সততা ও নিষ্ঠার সাথে পাসপোর্ট করতে আসা গ্রাহকদের সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন বলে জানান গ্রাহকরা। সেই সাথে গ্রাহকরা হয়রানির শিকার হলে নেওয়া হচ্ছে কঠোর ব্যবস্থা। ইতিমধ্যে দালালচক্রকে পুলিশে দেওয়া হয়েছে বলে জানান নারায়ণগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ পরিচালক গাজী মাহমুদুল হাসান।

গাজী মাহমুদুল হাসান বলেন, পাসপোর্ট করতে আসা কোন গ্রাহককে হয়রানি ও অনিয়ম করতে দেওয়া হবেনা। কেউ যদি কোন গ্রাহককে হয়রানি করে তাহলে তাকে আইনের হাতে তুলে দেয়া হবে বলে হুশিয়ারী করেন মাহমুদুল হাসান। তিনি আরও বলেন, আমি যতদিন নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের দায়িত্বে আছি কোন  গ্রাহককে বিভিন্ন অজুহাতে হয়রানি করতে দেওয়া হবেনা। মানুষ বিভিন্ন কারনে পাসপোর্ট করতে আসে, তাই তাদের সঠিক সেবা প্রদান করাই আমাদের কাজ। কিছু দালাল চক্র দ্রুত পাসপোর্ট করে দেওয়ার কথা বলে গ্রাহকদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে এমন তথ্য আমরা পাচ্ছি। এসব দালাল চক্রকে আমরা চিহ্নিত করে তাদের আইনের হাতে তুলে দিয়েছি। দালাল চক্রকে ধরতে আমরা সবসময় তৎপর রয়েছি। যদি আমাদের অফিসের কোন স্টাফ এমন অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকে তাহলে তাকে আর পাসপোর্ট অফিসে চাকুরী করতে দেওয়া হবেনা, তার স্থান হবে কারাগারে। কোন গ্রাহক যদি হয়রানির শিকার হন তাহলে আমাদের সাথে সাথে বিষয়টি অবগত করবেন। এদিকে নারায়নগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে পাসপোর্ট করতে আসা কয়েকজন গ্রাহক বলেন, নারায়নগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসের উপ পরিচালক গাজী মাহমুদুল হাসান একজন ন্যায়ের হিরো।  তিনি যোগদান করার পর থেকেই গ্রাহকদের হয়রানি অনেক কমে গিয়েছে। দ্রুত পাসপোর্ট হাতে পেয়ে আনন্দিত গ্রাহকরা। নারায়ণগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ পরিচালক গাজী মাহমুদুল হাসানকে সাধুবাদ জানিয়েছেন পাসপোর্ট করতে আসা গ্রাহকরা।

সেই সাথে দালালদের তৎপরতা কমে গিয়েছে। আমরা শৃঙ্খলা মোতাবেক পাসপোর্ট করতে পারছি। উপ পরিচালক গাজী মাহমুদুল হাসানের মত সৎ নিষ্ঠাবান মানুষ যদি প্রতিটি পাসপোর্ট অফিসে থাকে তাহলে পাসপোর্ট করতে আসা গ্রাহকরা বিভিন্ন হয়রানির হাত থেকে মুক্তি পেতো, সেই সাথে দূর হতো দালাল চক্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *